আরডিআরএস এর প্রযুক্তি সহায়তায় বুয়েটেক

অন্ধের লাঠি হাতে আরডিআরএস এর একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী

“স্বপ্ন আমরা ঘুমিয়ে দেখি না, বরং যা আমাদের ঘুমাতে দেয় না সেটাই স্বপ্ন” – এ পি জে আব্দুল কালাম

বুয়েটেক এর সদস্যদেরও ঘুম কেড়ে নেয়া কিছু স্বপ্ন আছে । বাংলাদেশে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ছাত্রছাত্রীরা অনেক ক্লাস প্রজেক্ট, থিসিস প্রজেক্ট করে থাকে, কিংবা নিতান্তই শখের বশে অসাধারণ কিছু প্রজেক্ট করে থাকে – যেগুলোর বাস্তব প্রয়োগ খুব একটা হয় না। বড়জোর দু-চারটি পত্রিকার পাতার দূরহ কোন এক কোনে আসে তারপর  হারিয়ে যায়। বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে কোন আবিষ্কার সবচেয়ে উপযোগী এটা অন্যদেশের উদ্ভাবক বা গবেষকগণ যতটা না বুঝতে পারবে, বাংলাদেশের উদ্ভাবকরা তার থেকে অনেক অনেকগুণ ভাল উপলব্ধি করতে পারবে। কিন্তু যতদিন দেশীয় প্রযুক্তিকে দূরে রেখে বিদেশি প্রযুক্তিকে সহায়তা করা হবে, উন্নয়নের পায়ে ততদিনই শক্ত একটা কড়া লাগানো থাকবে, যা অর্থনৈতিক এবং প্রযুক্তিগত প্রবৃদ্ধিকে বাধাগ্রস্ত করবে।

দেশীয় প্রযুক্তিকে দেশের সাধারণ মানুষের কাজে লাগানোয় সবচেয়ে বড় বাধা হল উদ্ভাবিত প্রযুক্তি সম্পর্কে অজ্ঞতা। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে উৎসাহী তরুণেরা নিয়মিত বিশ্বমানের প্রযুক্তির উদ্ভাবন এবং উন্নয়ন করে যাচ্ছেন, কিন্তু সাধারণ মানুষ যাদের জন্যে এই উদ্ভাবন তারা জানতেই পারছেন না তাদের প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি হাতের কাছেই রয়েছে। সাধারণের কাছে প্রযুক্তিকে পৌঁছে দেবার প্রয়াস থেকেই বুয়েটেকের যাত্রা শুরু হয়েছিল । বুয়েটেকে প্রকাশিত প্রযুক্তির খবর থেকে জানতে পেরে আর ডি আর এস (RDRS) বুয়েটেক এর সাথে যোগাযোগ করে এবং দৈনন্দিন জীবনে দেশীয় প্রযুক্তির প্রয়োগে সহায়তা আশা করে। বুয়েটেক আর.ডি.আর.এস. কে সহায়তা দিতে সম্মতি প্রকাশ করে এবং অলাভজনক ভাবে আর ডি আর এস (RDRS)এর হাতে সম্প্রতি – তুলে দিতে যাচ্ছে আমাদের বুয়েটের ছাত্রদের দ্বারা উদ্ভাবিত , উৎকর্ষিত পাঁচটি যন্ত্র যা অন্ধদের জীবন যাপন সহজ করতে সহায়তা করবে। আশা করা যায় , এই যন্ত্রগুলোর সফল ব্যবহার পিছিয়ে থাকা দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের জীবনকে নতুন করে রাঙ্গিয়ে দিতে পারবে ।

যে পাঁচটি যন্ত্র উৎকর্ষণ করা হয়েছে –

আর ডি আর এস এর একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধীর সাথে সেখানে যাওয়া বুয়েটেক সদস্যরা
আর ডি আর এস এর একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধীর সাথে সেখানে যাওয়া বুয়েটেক সদস্যরা

স্বল্প দৃষ্টিশক্তি সম্পন্ন শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা উপকরণ

–   দৃষ্টি বিবর্ধক যন্ত্রের মাধ্যমে বেশ কয়েক গুন পর্যন্ত বড় করে অক্ষর দেখা যাবে ।

–   আলো এর ব্যবস্থাও থাকবে ।

পেজ ছিদ্র করবার যন্ত্র

–   ব্রেইল টাইপ রাইটার এর উপযোগী করে পেজ ছিদ্র করে দিতে পারবে যাতে ব্রেইল টাইপ রাইটারে ছাপানো সম্ভব হবে।

অন্ধের লাঠি

–   বুয়েটেকে প্রকাশিত ফিচার অন্ধের লাঠির উন্নত সংস্করণ

–   দৃষ্টি প্রতিবন্ধীকে লাঠির বিকল্প হিসেবে পথ চলতে সহায়তা করবে

চা-কফি বানানোর জন্য সাহায্যকারী যন্ত্র

–   দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সহজেই কাপে পানির পরিমাপ বুঝতে পারবে

ব্রেইল কি-বোর্ড

–   বুয়েটেকে প্রকাশিত ফিচারের ব্রেইল কি-বোর্ড এর উন্নত সংস্করণ

–   শিক্ষার্থীরা ব্রেইল পদ্ধতিতে লিখতে পারবে

–   পরীক্ষা নেয়ার কাজেও এটি ব্যবহার করা যেতে পারে

–   কম্পিউটার এ লেখা সংরক্ষণ করা সম্ভব হবে।

 

অসম্ভবকে সম্ভব করার দুর্বিনীত বিশ্বাস বুয়েটেক এর সদস্যদের মনে প্রাণে। আমাদের অদম্য সেই ইচ্ছা প্রদীপ যারা জ্বালিয়ে রাখতে সমর্থন , উপদেশ, অভিমত দিয়ে যাচ্ছেন , সেইসব শুভানুধ্যায়ীদের জানাই অকৃত্রিম কৃতজ্ঞতা । বুয়েটেক এর পাশে থেকে শুভানুধ্যায়ীরা দেশীয় প্রযুক্তির মাধ্যমে দেশের উন্নয়ন ত্বরান্বিত করবেন এ প্রত্যাশা সকলের।

Share Button

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*