পদ্মা সেতু-এক স্বপ্নপূরণের গল্প-২

পদ্মা সেতু-২

প্রমত্ত পদ্মা! আপনি পদ্মাকে যখন দেখেন, কি দেখেন? এর প্রস্থ? অবশ্যই প্রস্থ! কারণ গভীরতা, আর স্রোতের তীব্রতা এত সহজে বোঝা যায় না।

নদীর গভীরতা কত জানেন? পানির প্রায় চল্লিশ মিটার নিচে নদীর তলদেশ। চল্লিশ মিটার মানে ১৩১ ফিট প্রায়। দশ ফিট করে সাধারণত এক তলার উচ্চতা। সেই হিসাবে, পদ্মা নদীর তলদেশ থেকে পানির পৃষ্ঠের উচ্চতা হল ১৩ তলা বিল্ডিং এর সমান!

তাহলে ব্রিজের কলামগুলো (সিভিল এর ভাষায় যাকে পিয়ার বলে) ১৩ তলা বিল্ডিং এর সমান হতে হবে। কিন্তু কলাম যদি মাটিতে গাঁথা না থাকে, পদ্মার যে স্রোত, কলাম তো ভেসে চলে যাবে!

তো কলাম মাটিতে গেঁথে দিতে হবে। কতটুকু গাঁথবেন? পদ্মার তলদেশের মাটি হল বালি টাইপের, নরম কাদা টাইপ। পাথরের মত শক্ত না। বেডরক প্রায় ৮কিমি নিচে বলে ধারনা করা হয়। তো বেডরক পর্যন্ত যাওয়ার স্বপ্ন না দেখাই ভাল। অনেক দেশেই বেডরক অনেক অল্প নিচেই পাওয়া যায়। তাদের দেশে যে কোন স্ট্রাকচার বানানো অনেক কম খরচের ব্যাপার কারণ তাদের ফাউন্ডেশন বানানো অনেক সহজ, খরচও কম। আমাদের এদিক দিয়ে কপাল খারাপ!

যাইহোক, তাহলে পদ্মা নদীর ব্রিজের পাইল কতটুকু দিতে হবে?

বর্ষাকালে যখন অতিরিক্ত স্রোত থাকে, এই পদ্মার তলদেশের বালির মতন মাটি ধুয়ে চলে যায়। এটাকে scour হওয়া বলে।

পদ্মা নদীর scour হওয়ার সর্বোচ্চ রেকর্ড হল ৬৫ মিটার (প্রায়) (বা ৬১ মিটার)। মানে নদীর নিচ থেকে ৬৫ মিটার মাটি ধুয়ে চলে গেছে। মানে ২১৩ ফিট। মানে ২১ তলা বিল্ডিং এর সমান উচ্চতার মাটি ধুয়ে চলে গেছে (অবিশ্বাস্য তাই না!)। পদ্মার এই প্রায় ২১ তলার সমান মাটি ধুয়ে চলে যাবার রেকর্ড বা এত বেশি পরিমাণ সেডিমেন্ট (মাটির কণা) ট্রান্সপোর্ট করার রেকর্ড অন্য কোন নদীর নেই! এ অবস্থায় পানির নিচে মাটি পেতে হলে আপনাকে নিচে নামতে হবে ১৩+২১=৩৪ তলা!

তাহলে আপনাকে ব্রিজের যে কলামগুলো দিতে হবে, সেগুলোকে ৪০+৬৫=১০৫ মিটারের বেশি লম্বা হতে হবে! মানে ৩৪ তলা বিল্ডিং এর চেয়ে লম্বা কলাম!

এখন, নদীর কোন জায়গায় scour বেশি হয়, কোথাও কম হয়। আপনি ঠিক নিশ্চিত না, কোথায় কতটুকু scour হয়ে আপনার সাধের পদ্মা ব্রিজের কলাম বের হয়ে যাবে (exposed হবে), মাটিতে গেঁথে থাকবে না, ফলাফল হিসেবে আপনার এত সাধের লম্বা কলামটা ভেসে যাবে!

এজন্য মোটামুটি এভারেজ ১২০ মিটার পাইল দেয়া হয়েছে। ১২০ মিটার মানে প্রায় একটা ৪০ তলা বিল্ডিং! এই ৪০ তলা বিল্ডিং এর সমান লম্বা পাইল বসানো হয়েছে। (আরেকবার ভাবুন, ১২০ মিটার!)

এটা গেল পাইলের depth! এবার চলেন দেখি পাইলের সাইজ কেমন, শেইপ কেমন। পাইল গুলো গোল। গোল ৪০ তলা বিল্ডিং এর সমান লম্বা সিলিন্ডার! এই সিলিন্ডারের ব্যাস হল ৩ মিটার। মানে প্রায় আপনার রুমের ফ্লোর থেকে ছাদ পর্যন্ত! এটা হল ব্যাস!

পাইলগুলো বানানো হচ্ছে স্টিলের পাত দিয়ে। বেশ পুরু (৭০/৬০ মিলিমিটার) এই পাতগুলোকে মুড়িয়ে সিলিন্ডার বানানো হচ্ছে। এই সিলিন্ডার জ্যামিতিক হারে যুক্ত করা হবে। মানে এক মিটার লম্বা সিলিন্ডারের সাথে, এক মিটার লম্বা আর একটা অংশ। এবার এই দুই মিটার লম্বা সিলিন্ডারটার সাথে, আর এক একটা দুই মিটার লম্বা সিলিন্ডার। এভাবে ২০ তলা বিল্ডিং এর সমান লম্বা একটার সাথে আর একটা ২০ তলার সমান লম্বা পাইল জোড়া দিয়ে বানানো হচ্ছে একটা পাইল!

এই যে বিশাল লম্বা পাইলগুলো, আপনার কি মনে হয়, কে ধরে তুলে নিয়ে গেছে? কে বসালো এগুলো? সুপারম্যান? এই পাইলগুলোর জন্যই জার্মানি থেকে স্পেশাল হ্যামার (হাতুড়ি) আনা হয়েছে। একটা হ্যামার তো পদ্মা সেতুর জন্যই বানানো হয়েছে, এমন গুজব আছে! স্পেশাল ক্রেন, স্পেশাল হ্যামার! এলাহি কান্ড চলছে মাওয়া-জাজিরায়!

এই পাইলগুলো ফাঁপা। মাটিতে বসানোর পর, এদের মাঝে বালু দিয়ে ভরাট করা হবে। পাইল গুলোতে জং ধরতে পারে, যদিও বা ধরে ১০০ বছরে ক্ষয় হবে ১০ মিলিমিটার। ৫০ /৬০ মিলিমিটার তখনো থাকবে। (এটা টেস্টেড, কতটুকু ক্ষয় হবে জং ধরলে) পদ্মা সেতুর ডিজাইন লাইফ ১০০ বছর। মানে ১০০ বছরে পাইলের পুরুত্ব কমা ছাড়া অন্য কিছু হবে না।

এতো গেল একটা পাইলের কাহিনী! কি মনে হয় আমাদের সাধের পদ্মা ব্রিজের কলাম, যাকে আমরা পিয়ার বলি, এই একটা পাইলের উপর দাঁড়ায়ে থাকবে? যদি এই পাইলের নিচের মাটি সরে যায়? যদি পাইল ভেঙে টেঙে যায়! এই জন্য প্রতি কলামের নিচে ৬টা করে পাইল থাকবে। মাকড়শার যেমন ৮টা পা ৮দিকে থাকে, এই পিয়ারের (কলামের) পাইল গুলো তেমন ৬ দিকে ছড়ায়ে যাবে।

পাইল গুলো ভার্টিক্যাল ভাবে কিন্তু মাটিতে বসানো হবে না। বাঁকা করে, ইনক্লাইন্ড ভাবে ঢুকানো হবে। 1H:6V (মানে প্রায় ৯.৫ ডিগ্রি) অনুপাতে ইনক্লাইন্ড হবে। তো ১২০মিটার লম্বা পাইল, বাঁকা করে ঢুকালে মাটির নিচে এদের ৬জনের পা, ৬দিকে অনেক অনেক দূরে থাকবে। এই ৬দিকের মাটি ইন শা আল্লাহ একসাথে ধুয়ে যাবে না (scour হবে না)। এই যে এরা ইনক্লাইন্ড ভাবে থাকবে, এতে এদের লোড নেয়ার ক্ষমতাও একটু বাড়বে। ব্যাপারটা অনেকটা এমন যে ঘূর্ণিঝড়ের সময় যে সাংবাদিকরা রিপোর্ট করেন, দেখা যায় দুই পা দুই দিকে, দূরে দিয়ে আছেন। সোজা দাঁড়ানো থাকলে বাতাসে উল্টে যাওযার আশঙ্কা থাকে। এমনটা করেন কারণ যে ল্যাটারাল লোডটা আসে (উইন্ড লোড) সেটা দুইপা একসাথে করে দাঁড়ালে যতটা সহজে দাঁড়ানো যায়, দুইপা দুদিকে দিয়ে রাখলে দাঁড়াতে সুবিধা হয়। এটাও কিন্তু ইঞ্জিনিয়ারিং প্ল্যান! তো, এই ৬ টা পাইলও তাই শুধু ইনক্লাইন্ড থাকার জন্য ল্যাটারাল লোড নিবে বেশি। (ল্যাটারাল লোড মানে যেটা সাইড থেকে আসছে, যেমন স্রোতের যে ধাক্কাটা, সেটা)

এই পাইলগুলো ডিজাইন করার সময় PIGLET নামের প্রোগ্রাম ব্যবহার করা হয়েছিল। Optimum/most efficient পাইল খুঁজে বের করা হয়েছে এই প্রোগ্রাম দিয়ে। তিন ধরনের পাইল ফাউন্ডেশন এর উপর এই স্টাডি করা হয়। এই তিন ধরনের ফাউন্ডেশন হল:

১. 6 raking steel tubular piles

২. 8 raking steel tubular piles

৩. 12 cast in situ vertical concrete pile

স্টাডি থেকে দেখা যায়, ৬টা ইনক্লাইন্ড স্টীল পাইলের ফাউন্ডেশন সবচেয়ে efficient (raking মানে ইনক্লাইন্ড)।

এই ৬ টা পাইলের মাথায় থাকবে পাইল ক্যাপ। এই জিনিসটা আপনি পানিতে ভেসে থাকতে দেখবেন। কিন্তু এটা মোটেও ভেসে নেই! এটা রীতিমত ৬ পা (পাইল) দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। এই পাইল ক্যাপ এত বড়, একটা ৩/৪ জনের ফ্যামিলি এতটুকু জায়গায় সংসার করতে পারবে! এই পাইল ক্যাপ পুরোটাই কংক্রিটের।

দুইটা পিয়ারের নিচের পাইল একটু অন্য রকম হবে। Vertical bored concrete pile হওয়ার কথা। যেগুলো ৮০ মিটার পর্যন্ত গভীরে যাবে। মানে এই পাইলগুলো ইনক্লাইন্ড হবে না, সোজা পানির নিচে যাবে। এগুলো হবে কংক্রিটের পাইল, আমাদের বাসাবাড়ির সাধারন কলামের মত। সবচেয়ে মজার পার্ট হল, এই পাইলগুলো পানিতে কাস্ট করা হবে! মানে পানির মাঝে কংক্রিট ঢেলে দিবে! কিন্তু কংক্রিট ভেসে না গিয়ে কলাম হয়ে যাবে! আছে ভাই, এই টেকনোলজিও আছে! এই পাইলের ক্ষেত্রে একটা পিয়ারের নিচে ১২ টা করে পাইল দেয়া হবে।

এই পাইল ক্যাপের উপর দাঁড়াবে পিয়ার বা ব্রিজের কলাম। এই পিয়ার পুরোটাই কংক্রিটের (reinforced concrete)। পুরো ব্রিজে পিয়ার হবে ৪১ টা। তবে মাওয়া প্রান্তে নদীর তলদেশে কাদা ছাড়া শক্ত মাটি খুঁজে না পাওয়ায় পাইলের ডিজাইন /নাম্বারে চেঞ্জ আসতে পারে। পিয়ার সংখ্যা বেড়ে ৪৩ টা হতে পারে। যেটা সবচেয়ে ইফেক্টিভ হবে, যেটার খরচ সবচেয়ে কম হবে, সেটাই বাস্তবে প্রয়োগ করা হবে।

এই পিয়ারের মাথায় বসবে স্প্যান। প্রতিটা স্প্যানের দৈর্ঘ্য ১৫০ মিটার।

এই স্প্যান ডিজাইনের জন্য, ৩ ধরণের স্প্যানের এনালাইটিকাল মডেল (কম্পিউটার এ, এনালাইসিস সফটওয়্যার দিয়ে) বানিয়ে চেক করা হয়, কোনটা সবচেয়ে কম খরচে বেশি সেফটি দিবে। তিনটা স্প্যান ছিলঃ ১২০ মিটার, ১৫০ মিটার আর ১৮০ মিটার। এদের মধ্যে ১৫০ মিটার স্প্যান ছিল সবচেয়ে efficient। তাই বাস্তবে ১৫০ মিটার স্প্যান বসানো হয়েছে।

এই স্প্যানগুলো হল Warren type steel truss girder and concrete on upper deck। সবগুলো স্প্যান মিলে হয় ৬,১৫০ মিটার। অর্থাৎ, পুরো ব্রিজের দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিমি। মানে পুরো পদ্মা ব্রিজটা হল: সাইন্স ল্যাব বাস স্ট্যান্ড থেকে কল্যাণপুর বাস স্ট্যান্ড এর সমান লম্বা বা শাহাবাগ থেকে মহাখালী ফ্লাইওভার পর্যন্ত লম্বা প্রায়।

পদ্মা ব্রিজ একটা দুইতলা ব্রিজ। Still truss এর মধ্য দিয়ে যাবে ট্রেন। রেল লাইন হল Dual gauge। মানে broad gauge আর meter gauge, দুই ধরনের রেলগাড়িই পদ্মাব্রিজ পাড়ি দিতে পারবে। তো পদ্মা ব্রিজ দিয়ে আসলে বাংলাদেশের যে কোন রেলই চলতে পারবে। এখানে Emergency Access Point থাকবে, যাতে ট্রেনে কোন ধরনের সমস্যা হলে, ট্রেন থেকে মানুষ নামিয়ে তাদের সেফ জায়গায় নিয়ে যাওয়া যায়।

আবার, এটা কোন সাধারণ রেললাইন না। এটাতে যাতে দুটি কনটেইনার নিয়ে মালগাড়ি যেতে পারে সে ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। বাংলাদেশে রেলগাড়ি সাধারণত একটি কনটেইনার নেয়। কিন্তু এখানে করা হচ্ছে যাতে ভবিষ্যতে একটার ওপর আরেকটি কনটেইনার অর্থাৎ দোতলা কনটেইনার নিয়ে ট্রেন যেতে পারে।

এই দুইতলা ব্রিজের উপরে বসবে কংক্রিটের ডেক, মানে ছাদ। এটার উপর দিয়ে গাড়ী চলবে। সবচেয়ে হালকা যে ম্যাটেরিয়াল দিয়ে ডেক তৈরি করা সম্ভব, সেটাই ব্যবহার করা হবে। ডেক, মানে ব্রিজের উপর রাস্তা চওড়া হবে ২২ মিটার বা ৭২ ফিট। এইখানে চার লেনে গাড়ি চলবে।

এই স্প্যান বসানোর আগে Seismic Isolation Bearing ব্যবহার করা হয়েছে। এটা না থাকলে ভূমিকম্প যে এনার্জি নিয়ে স্ট্রাকচারকে আঘাত করত, এটা থাকায় সেই এনার্জি অনেকটা কমে যাবে। এখানে যে প্রযুক্তি বেজ আইসলিউশন ব্যবহার করা হয়েছে, এটাতে ভূমিকম্পের সময় ফাউন্ডেশন মুভ করবে কিন্তু ওপরের ব্রিজটা মুভ করবে না। নড়াচড়ার একটা ব্যবস্থা থাকবে। এটাকে পেনডুলাম বিয়ারিং বলে। এর সাহায্যে স্লাইড করতে পারবে, আবার ফিরে আসবে। বিশ্বে এটা অনেক জায়গায় ব্যবহার করা হয়েছে। তবে এত বড় প্রকল্পে কখনো ব্যবহার করা হয়নি। এই প্রযুক্তির কারণে পাইলের সংখ্যা, পাইল ক্যাপের সাইজ কিছুটা কমানো গেছে।

ব্রিজের মাধ্যমে কিছু ইউটিলিটিসও নদী পার হবে! গ্যাস ট্রান্সমিশন লাইন থাকবে একটা। অপটিকাল ফাইবার ও টেলিফোনের লাইন যাবে। এবং অবশ্যই ইলেকট্রিক লাইন যাবে।

এই বিশাল কর্মযজ্ঞ চলছে মাওয়া জাজিরায়। ইতোমধ্যে পদ্মা সেতু দৃশ্যমান হয়েছে।

চলবে…

Author: শ্রাবস্তী রোম্মান
Contributor: মোনায়েম হাসান, রাজেশ চক্রবর্তী

Share Button

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*